শিলিগুড়িতে প্রথমবার জয়ী তৃণমূল কংগ্রেস, উচ্ছ্বসিত দলনেত্রী

বিধাননগর, চন্দননগর, শিলিগুড়ি এবং আসানসোল এই চারটি পৌরসভাতেই বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে জয় লাভ করেছে তৃণমূল কংগ্রেস । এই জয়ের জন্য সাধারণ মানুষকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একইসঙ্গে আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি রাজ্যের বাকি ১০৭টি পুরসভা নির্বাচনে দলীয় কর্মীদের আইন নিজেদের হাতে তুলে না নেওয়ার কঠোর নির্দেশ দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “মানুষের রায় আমরা মাথা পেতে নেব”৷

সোমবার সকালে চার পৌরনিগমের ভোট গণনা শুরু হওয়ার পর থেকেই বিভিন্ন ওয়ার্ডে তৃণমূল প্রার্থীদের বিপুল ভোটে জয়ের খবর প্রকাশিত হতে শুরু করে। চারটি পৌরসভাতেই জয়লাভের পর সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, “আমি, আমার দল এবং দলের প্রত্যেকটা কর্মী, মানুষের কাছে, তৃণমূল কংগ্রেস পরিবারের কাছে কৃতজ্ঞ৷ মানুষের আশীর্বাদের দাম যেন আমরা দিতে পারি৷ আমরা যত জিতব তত যেন আমরা নম্র হই৷ চারটি কর্পোরেশনেই যাঁরা জিতেছেন তাঁরা সুন্দর ভাবে গ্রিন অ্যান্ড ক্লিন কর্পোরেশন গড়ে তুলুন৷ নির্মাণ ও সবুজায়ন একসঙ্গে চলুক৷ বিশ্বায়ন সবুজায়ন ছাড়া হয় না৷ আমি নিজে সবুজায়ন ভালবাসি”৷

চারটি পৌরসভাতেই তৃণমূল কংগ্রেস জয়লাভ করলেও ২০২২ সালে প্রথমবারের জন্য শিলিগুড়ি পৌরসভায় জয় পেল দল। স্বভাবতই এই জয়ে উচ্ছ্বসিত তৃণমূলনেত্রী জয়ের জন্য শিলিগুড়িতে দলের নেতা গৌতম দেবকে অভিনন্দন জানিয়েছেন৷

শিলিগুড়িতে প্রথমবার জয় প্রসঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “লোকসভায় উত্তরবঙ্গে সব সিট বিজেপি পেয়েছিল৷ বিধানসভাতেও শিলিগুড়ি সহ উত্তরবঙ্গের অনেক সিটে আমরা হেরেছিলাম৷ উত্তরবঙ্গের মানুষকে একতরফা ভাবে ভুল বোঝানো হয়৷ বিভ্রান্তিমূলক প্রচার করা হয়৷ জাতিতে জাতিতে ভেদাভেদ করা হয়৷ মানুষ যত তাড়াতাড়ি এই ভুল বুঝতে পারবে আরও ভাল”৷

চারটি পৌরসভায় জয় লাভের জন্য দলীয় নেতাকর্মীদের শুভেচ্ছা জানানোর পাশাপাশি আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি রাজ্যের বাকি ১০৭টি পুরসভার নির্বাচনে যাতে কোনরকম গণ্ডগোল না হয় সেই বিষয়েও দলকে কঠোর নির্দেশ দেন তৃণমূল নেত্রী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “আমি চাই নির্বাচন হবে শান্তিপূর্ণ৷ কোনও নির্বাচনে কোথাও কেউ আইন হাতে নেবেন না৷ মানুষ জেতালে জিতব, নাহলে মানুষের রায় মাথা পেতে নেবো”৷

তৃণমূল নেত্রী আরও বলেন, “এবারেও আমি কোথাও কোনও গন্ডগোল করতে দিইনি৷ বিধাননগরে গত বার গন্ডগোল হয়েছিল এবার করতে দিইনি৷ মানুষ স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে ভোট দিয়েছে৷ এই জয় আমাদের বাকি পুরসভাগুলিতেও জিততে সাহায্য করবে”৷

Also can read : “Peaceful” polling in four municipal corporation elections, 72% voters turn out