তিনি কেন দল ছাড়ছেন না? দিলীপ ঘোষ থেকে তথাগত রায়

একুশের বিধানসভা নির্বাচনে বাংলায় কার্যত ভরাডুবি হয়েছে বিজেপির। তারপর থেকেই শুরু হয়েছে দলবদলের পালা।

যারা নির্বাচনের আগে অন্য দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন তারা আবার চলে যাচ্ছেন। দিলীপ ঘোষ যোগ করেছে

আর সেই সমস্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে ক্রমশ প্রকট হয়েছে বিজেপির অন্তর্দ্বন্দ্ব।

ফের একবার বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল টেনে ট্যুইট করে বিস্ফোরক দাবী বিজেপির বর্ষীয়াণ নেতা তথাগত রায়ের।

বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষক ‘দাবার অসহায় ঘুঁটি’ বলে মন্তব্য করেন তথাগত রায়।

ট্যুইট করে তথাগত রায় বলেন, “যত বেশি জানতে পারছি দিলীপ ঘোষের প্রতি আমার সহমর্মিতা ততই বাড়ছে।

কেন্দ্রীয় নেতারা তাঁকে কার্যত অসহায় দাবার ঘুঁটিতে পরিণত করেছিল। দিলীপও তাই বলেছেন।

পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির আত্মহত্যার ঘটনা ধীরে ধীরে প্রকাশ পাচ্ছে।”
এর পাশাপাশি ট্যুইটে তিনি আরও একবার ‘কেএসএ’ টিমের কথা উল্লেখ করেছেন।

সূত্র মারফৎ জানা গিয়েছে, ‘কেএসএ’ বলতে তিনি বিধানসভা নির্বাচনে দায়িত্বে থাকা কৈলাস বিজয়বর্গীয়, শিবপ্রকাশ এবং অরবিন্দ মেননকে বোঝাতে চেয়েছেন।

এর আগেও তিনি কৈলাস বিজয়বর্গীয়র বিরুদ্ধে নিজের ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছিলেন।

অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়ের বিজেপি ছাড়ার ঘটনায় কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে নিশানা বানিয়ে একটি ট্যুইটে তথাগত রায় বলেন, “আমাদের এক পুরোনো কর্মী দিন দুয়েক আগে লিখেছিলেন, উনি জয়নগরের সভা পরিচালনা করছিলেন।

কৈলাস বিজয়বর্গীয় শ্রাবন্তী সম্বন্ধে বলছিলেন, ওর মুখ দিয়ে প্রায় লালা ঝরছিল।

এই সব নেতার হাতে বিজেপির প্রার্থী চয়নের ভার ছিল। এরপরে পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির যে এই অবস্থা হবে এ আর বিচিত্র কি?”

একটি ট্যুইটে তিনিকৈলাস বিজয়বর্গীয়কে ‘ঘৃণা’ করেন বলেও উল্লেখ করেছিলেন।

অন্যদিকে, একুশের নির্বাচনে একঝাঁক তারকা প্রার্থীর দলে যোগ দেওয়া নিয়েও আপত্তি জানিয়েছিলেন তথাগত রায়।

সরাসরি প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়েছিলেন দলীয় শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে, “কেন টিকিট দেওয়া হল এই মহিলাদের?

কি গুন আছে এদের?” এমনকি তারকা প্রার্থীদের ‘নগরের নটী’ বলতেও পিছপা হননি বিজেপির এই বর্ষীয়াণ নেতা।

শ্রাবন্তীর দলত্যাগের ঘোষণার পর তিনি ট্যুইটে বলেন, “গরিবের কথা বাসি হলে সত্যি হয়।

বিজেপির কালীঘাটে পুজো দেওয়া উচিত। ঘাড় থেকে ভূত নামল।”

কার্যত বিজেপির শীর্ষ নেতাদের নিশানা বানিয়ে বিজেপির এই বর্ষীয়াণ নেতার একাধিক ট্যুইটের জেরে অস্বস্তিতে গেরুয়া শিবির।

কখনও কৈলাস বিজয়বর্গীয়, কখনও দিলীপ ঘোষ, কেউই বাদ যাচ্ছেন না তথাগত রায়ের নিশানা থেকে।

শনিবার তাঁর ট্যুইটের প্রেক্ষিতে মুখ খোলেননি বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি।

রবিবার সকালে এই প্রসঙ্গে নিজের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন দিলীপ ঘোষ। তাঁর বক্তব্য, “তরজা নয়, লড়াইতে আছি।

ইনডোর ম্যাচ নয়, আউটডোর গেম খেলি”।

বিজেপির এই দুই পোড় খাওয়া নেতার বাকবিতণ্ডায় রাজনৈতিক মহলের দাবী, দুজনের সম্পর্ক যে তলানিতে ঠেকেছে, সে বিষয়ে সন্দেহের কোন অবকাশ নেই।

সম্প্রতি একের পর এক ট্যুইটে পদ্মশিবিরের বিরুদ্ধে নিজের ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন তথাগত রায়।

স্বেচ্ছায় তিনি দলত্যাগ করবেন না, এমনটাই জানিয়েছেন তিনি। তবে দল ছাড়লে দলের অনেক গোপন কীর্তি ফাঁস করে দেওয়ার হুমকিও দিয়েছেন এই বর্ষীয়াণ নেতা।

অর্থ এবং নারীর চক্র থেকে বিজেপিকে বের করে আনা প্রয়োজন, ট্যুইটে তিনি এমন দাবীও করেন।

তাঁর এই সমস্ত মন্তব্যের জেরে আইনি বিপাকে পড়েন তিনি। FIR দায়ের করা হয় তথাগত রায়ের বিরুদ্ধে।

Also read – বিজেপি নেতার তৃণমূলে যোগ দেওয়া নিয়ে জল্পনা চলছে