দিল্লি সফরের আগে পড়ুয়াদের জন্য বড় ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর

চলতি মাসেই দিল্লি সফর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের। একুশের বিধানসভা নির্বাচনে নিরংকুশ সংখ্যা গরিষ্ঠতা লাভের পর এটা মুখ্যমন্ত্রীর দ্বিতীয় দিল্লি সফর।

জানা গিয়েছে ২২ থেকে ২৫শে নভেম্বরের মধ্যেই দিল্লি যাবেন মমতা বন্দোপাধ্যায়।

আগামী ২৯শে নভেম্বর শুরু হচ্ছে সংসদের শীতকালীন অধিবেশন। তার আগে মুখ্যমন্ত্রীর এই সফর যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ, এমনটাই অনুমান রাজনৈতিক মহলের। 

সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, এই সফরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গেও দেখা করতে পারেন তিনি।

উত্তর ২৪ পরগণার জেলা প্রশাসনিক বৈঠকে তেমনটাই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে আমফান, ইয়াসের বকেয়া টাকা নিয়ে আলোচনার পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী বিএসএফের এক্তিয়ার বৃদ্ধি নিয়েও আলোচনা করতে পারেন বলে জানা গিয়েছে।

বিএসএফের এক্তিয়ার বৃদ্ধিতে আপত্তি জানিয়ে গতমাসে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ইতিমধ্যেই কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভায় প্রস্তাব পাশ করা হয়েছে।

ইতিপূর্বে বিধানসভা নির্বাচনে জয়ের পর জুলাই মাসে দিল্লি এসেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে  রাজ্যের দাবি-দাওয়া সংক্রান্ত আবেদনও জানিয়েছিলেন।

সব দিক বিচার করে মুখ্যমন্ত্রীর এই সফর যথেষ্ট তাতপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল।

প্রসঙ্গত, গত বছর সংসদের বাদল অধিবেশনে দুই কক্ষে পাশ হয়েছিল প্রস্তাবিত তিনটি কৃষি আইন, যার বিরোধিতায় আন্দোলনে নেমেছিলেন কৃষক সম্প্রদায়।

সরকার থেকে কৃষকদের সঙ্গে আলোচনার চেষ্টা করা হলেও আন্দোলন থেকে বিরত হননি কৃষকরা।

কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে অনড় ছিলেন তাঁরা। গত ত্রিপুরা গুরু নানকের জন্মদিনে প্রধানমন্ত্রী কৃষি আইন প্রত্যাহারের ঘোষণা করেন।

কিন্তু আইন প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত কৃষকরা আন্দোলন থেকে পিছু হটবেন না বলেই জানিয়েছেন কৃষক আন্দোলনের নেতা রাকেশ টিকায়েত।

প্রধানমন্ত্রীর আইন প্রত্যাহারের ঘোষণার পর ট্যুইটারে অভিনন্দন জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়।

অন্যদিকে, ১লা জানুয়ারি রাজ্যে পালিত হবে স্টুডেন্টস ডে বা ছাত্র দিবস। সম্প্রতি এক প্রশাসনিক বৈঠকে এমনটাই ঘোষণা করেছেন মমতা বন্দোপাধ্যায়।

নবান্ন সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই দিন ২০ হাজার ছাত্র ছাত্রীদের দেওয়া হবে স্টুডেন্টস ক্রেডিট কার্ড।

শনিবার সেই সংক্রান্ত বৈঠক সারেন রাজ্যের মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী।

শনিবার প্রত্যেকটি জেলার সঙ্গে এই সংক্রান্ত বৈঠক করেন রাজ্যের মুখ্যসচিব। বৈঠকে তিনি ২০ হাজার স্টুডেন্টস ক্রেডিট কার্ড দেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা স্থির করেন।

শনিবার রাজ্যের প্রায় ৪ হাজার ছাত্র ছাত্রীকে স্টুডেন্টস ক্রেডিট কার্ড দেওয়া হয়।

পাশাপাশি ব্যাঙ্কগুলিকে স্টুডেন্টস ক্রেডিট কার্ড দেওয়ার গতি বাড়ানোর নির্দেশও দিয়েছেন তিনি।

আগামী ২০ ডিসেম্বর রাজ্যে শিক্ষা মেলার করার কথা জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়।

ওই দিন ১০ হাজার পড়ুয়াকে স্টুডেন্টস ক্রেডিট কার্ড দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন তিনি।

পাশাপাশি, ১২ জানুয়ারি বিবেকানন্দ স্কলারশিপ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

শিক্ষা দফতরের তরফে জানা গিয়েছে, শিক্ষা মেলার দিন ক্যাম্প থেকে ক্রেডিট কার্ড দেওয়া হবে।

ওই দিন ১৫০ থেকে ২০০ কোটি টাকা পড়ুয়াদের দেওয়া হবে সরকারের তরফে, এমনটাই জানানো হয়েছে।

Also read – নন্দীগ্রাম দিবস ঘিরে তুমুল বাকযুদ্ধে জড়ালেন শুভেন্দু-কুণাল