BJP State President Sukanta Majumdar: পাঁচ মাসে ৫ বিধায়কের দলত্যাগ, ভাঙন আটকাতে BJP রাজ্য সভাপতির ‘অনুরোধ’!

[ad_1]

#কলকাতা: রাজ্য জয়ের স্বপ্ন দেখেছিল দল, কিন্তু ২০০ আসন জেতা তো দূর, পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে কার্যত পর্যুদস্ত হয়েছে বিজেপি। আর তারপর থেকেই BJP ছাড়ার হিড়িক পড়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যেই ৫ মাসে ৫ বিধায়ক দল ছেড়েছেন। বিধানসভা ভোটের পর থেকে মুকুল রায় (Mukul Roy) সহ চার বিজেপি বিধায়ক ইতিমধ্যেই নাম লিখিয়েছেন শাসক দল TMC-তে। এদিনই আবার বিজেপি ছেড়েছেন রায়গঞ্জের বিজেপি বিধায়ক কৃষ্ণ কল্যাণী। তাঁরও তৃণমূলে নাম লেখানো নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে দলের অন্দরে অনুরোধের রাস্তায় হাঁটলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার (BJP State President Sukanta Majumdar)।

এদিন সুকান্ত মজুমদারকে অভ্যর্থনা দেয় রাজ্য বিজেপি। সেই অনুষ্ঠানে অবশ্য প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ উপস্থিত ছিলেন না। দলে ভাঙন প্রসঙ্গে অবশ্য সুকান্ত বলেন, ‘আমরা বিধায়কদের সঙ্গে কথা বলছি। ব্যক্তিগত স্বার্থের থেকে দলীয় স্বার্থ অনেক বড়। সকলকেই অনুরোধ করছি, দলীয় স্বার্থের কথা ভেবে আসুন একসঙ্গে কাজ করি।’ আর রাজ্য সভাপতির সেই ‘অনুরোধ’ নিয়েই জল্পনা বাড়ছে রাজ্য বিজেপিতে। তাহলে কি আরও ভাঙনের আশঙ্কা করছে গেরুয়া শিবির?

প্রসঙ্গত, রাজ্য সভাপতি হওয়ার পর প্রথম দিল্লি সফরে গিয়েও কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের তরফেও বিশেষ বার্তা পেয়েছেন সুকান্ত। দলে ভাঙন আটকাতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সুকান্ত বাবুকে, বিজেপি সূত্রে এমনটাই খবর। দিন কয়েক আগেই রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেছিলেন, ‘কয়েকদিন বাদে এমন একটা নাম আসবে বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে, চিন্তা করতে পারবেন না।’ কিন্তু কে সেই নেতা, তা নিয়ে মুখ খুলতে চাননি মন্ত্রী।

ফিরহাদের সেই মন্তব্যের প্রেক্ষিতেও সুকান্ত মজুমদার বলেছিলেন, ‘যারা নীতি-আদর্শের ভিত্তিতে দল করেন, তারা কেউ বিজেপি ছেড়ে যাবেন না। সেই বিষয়ে আমি নিশ্চিত আছি। কিন্তু, যাদের সমস্যা হচ্ছে, তাঁদের উদ্দেশ্যে আমি বলব, কোনও রাগ-ক্ষোভ থাকলে আসুন, আলোচনা করুন দলের মধ্যেই। আমি মনে করি, আলোচনার মাধ্যমেই সব সমস্যার সমাধান করা সম্ভব। আমরা একসাথে লড়াই করব সবাই। আর সেই লড়াইয়ের প্রেক্ষিতেই এই সরকারকে উৎখাত করা শুধু সময়ের অপেক্ষা।’


আরও পড়ুন: ফিরহাদের ‘বিরাট নেতা তৃণমূলে’ মন্তব্য, সুকান্তের প্রতিক্রিয়ায় আরও বাড়ল জল্পনা!

বিধানসভা ভোটের পর থেকে মুকুল রায় (Mukul Roy) সহ চার বিজেপি বিধায়ক ইতিমধ্যেই নাম লিখিয়েছেন শাসক দল TMC-তে। দিন কয়েক আগেই রীতিমতো আলোড়ন ফেলে পদ্ম ছেড়ে ঘাসফুলে এসেছেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা আসানসোলের সাংসদ বাবুল সুপ্রিয় (Babul Supriyo)। সেই সূত্রে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় (Abhishek Banerjee) দাবি করেছেন, খেলা তো সবে শুরু হল৷ আগামীতে আরও অনেক বড় চমক অপেক্ষা করছে।’ বিজেপিতে যেভাবে ভাঙন বাড়ছে, তাতে চমক নিয়ে বেজায় জল্পনা রাজ্য রাজনীতিতে।

[ad_2]

Source link